বাংলাদেশ , শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০

কালীগঞ্জে কিশোর প্রতিবন্ধী বলৎকালের শিকার থানায় মামলা দায়ের

লেখক : AjKMuSbt | প্রকাশ: ২০২০-০৯-২৩ ১০:২৩:৩১

তৈয়বুর রহমান, কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধিঃ গাজীপুরের কালীগঞ্জে ১৫ বছরের এক কিশোর শারীরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধীকে খাবারের প্রলোভন দেখিয়ে বলৎকারের (ধর্ষন) অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বক্তারপুর ইউনিয়নের নয়া বাজারস্থ মাহতাবের দোকানের পিছনে কলা বাগানে।

এ ব্যাপারে ওই প্রতিবন্ধীর মা বাদী হয়ে কালীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এ ব্যপারে অভিযুক্ত জাকির হোসেন ঘটনার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, আমাকে ফাঁসানোর জন্য এলাকার লোকজন মিথ্যা অপ প্রচার চালিয়ে আসছে। এ বিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস.আই. মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বলেন- থানায় মামলা হয়েছে। যার নং-১৮(০৯)২০।

ঘটনার পর থেকে আসামী পলাতক রয়েছে। তবে দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ১৭ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যার পর সাতানী পাড়ার রাজ মিস্ত্রী জাকির হোসেন (৩২) প্রতিবন্ধী কিশোরকে একা পেয়ে বিস্কুট খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে সুকৌশলে নয়া বাজার মাহতাবের দোকানের পিছনে নিরব স্থানে কলা বাগানে নিয়ে যায়।

সেখানে নিরব হওয়ায় জোর পূর্বক তাকে বলৎকার (ধর্ষন) করে। এ ব্যাপারে প্রতিবন্ধীর মা জানান, বাড়ীতে এসে আমার প্রতিবন্ধী ছেলে কান্না-কাটি করলে কান্নার কারণ জানতে চাই। পরে সে ইশারায় ইঙ্গিতে বুঝানোর চেস্টা করে।

পরে তার মা তার প্যান্টে রক্ত দেখে স্থানীয় বাজারের আদর্শ হোমিও প্যাথিক চিকিৎসক মনকিরের নিকট নিয়ে যাই। ডাক্তার তার অবস্থা বেগতিক দেখে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিতে পরামর্শ দেন।

পরে তাকে রক্তাত্ব জখম অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরিক্ষার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে প্রেরণ করেন।

স্থানীয় সুশিল সমাজের ব্যক্তিবর্গ মিনহাজ আবেদিন বিশাল, শহিদুল ইসলাম বেপারী, হোমিও চিকিৎসক মনকির হোসেন, রাজিব ভুইয়া, তাজুল ইসলাম ভুইয়া, সিরাজ মিয়া, অলিউল্লাহ্, আবুল কাশেম, হারিছ উদ্দিন, আব্দুল কাইয়ুম, ইমান আলী জানান পার্শ্ববর্তী সাতানী গ্রামের রাজমেন্ত্রী জাকির হোসেন দির্ঘদিন যাবৎ এলাকায় মাদক সেবন ও ব্যবসা , নারী নির্যাতন, বলৎকারসহ বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িত রয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ এ.কে.এম মিজানুল হক ঘটনার সতত্য নিশ্চিত করে বলেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে থানায় একটি মামলা রুজু করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email